ঢাকা, বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন
কেঁদেছেন ফেরদৌস, মন খারাপ মাহির
বিনোদন ডেস্ক :

প্রথমবারের মতো সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েই জয়ী হয়েছেন ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ। ঢাকা-১০ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত এই প্রার্থী নির্বাচনে ৬৫ হাজার ৮৯৮ ভোট পেয়েছেন। অন্যদিকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী শামসুল আলম আম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ২৫৭ ভোট।

নির্বাচনের রাতে বেসরকারিভাবে ফল ঘোষণার পর আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই তারকা। প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় স্মরণ করেন তার প্রয়াত বাবা ও শ্বশুরকে। এসময় কাঁদতে দেখা যায় নায়ককে।

জয়ের প্রতিক্রিয়া ফেরদৌস বলেন, ‘বাবাকে খুব মিস করছি। আমার শ্বশুর থাকলেও খুব খুশি হতেন। তিনি একজন সংসদ সদস্য ছিলেন। যিনি আমার অনুপ্রেরণা ছিলেন। কীভাবে মানুষকে ভালোবাসা যায়, তার কাছ থেকে শিখেছি। কীভাবে সাধারণ মানুষ হয়েও অসাধারণভাবে ভালোবাসা যায়, সেটাও জেনেছি। গণমানুষের নেত্রী শেখ হাসিনাকে দেখেছি। তাদের কাছ থেকে শেখার চেষ্টা করেছি।’

স্ত্রী তানিয়া রেজাকে পাশে নিয়ে এই চিত্রনায়ক আরো বলেন, ‘আমার স্ত্রী, দুই মেয়ে, স্বজন ও বন্ধু-বান্ধব যারা আছেন তারা খুব খুশি হয়েছেন। এমন একটা আনন্দ যা বলে বোঝানো যাবে না। এটা একা ভাগাভাগি করা সম্ভব না। আশেপাশের মানুষ, বন্ধু-বান্ধব এসেছেন, আমার খুবই ভালো লাগছে।’

কর্মী ও সাধারণ মানুষের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করে ফেরদৌস বলেন, ‘এই ফুলের মালা আমার দায়িত্ব আরো বাড়িয়েছে। আমি সেবক হতে চেয়েছিলাম, সেবা করব। মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলাম সেবার করার, করেছিও। জনগণ মালা পরিয়ে দিয়েছে, এখন নিশ্চিত হয়ে তাদের পাশে দাঁড়াব। আমি নেতাকর্মীদের প্রতি ভীষণ কৃতজ্ঞ। তারা ছাড়া এ জয় কোনোভাবেই সম্ভব ছিল না।’

অপরদিকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয়ের বিষয়ে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেন, কিছুটা তো মন খারাপ থাকবেই। কারণ, গেমে আমি হেরে গেছি। তবে যেকোনো অবস্থার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলাম আমি।

সোমবার (৮ জানুয়ারি) রাতে নিজের ফেসবুক পেজে দেয়া এক ভিডিওবার্তায় এ মন্তব্য করেন তিনি।মাহিয়া মাহি বলেন, যদিও আমি অনেক কম ভোট পেয়েছি কিন্তু নারী হয়ে নতুন অবস্থায় যে ভোট করেছি, তার প্রশংসা করা উচিত। তিনি বলেন, ইশতেহারে কর্মসংস্থানের যে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, তা আমি কতটা করতে পারব, জানি না। কারণ, এ বিষয়ে ব্যক্তিগতভাবে উদ্যোগ নেয়া চ্যালেঞ্জিং। তবে তিনি চেষ্টা করবেন বলে জানান।

ঢাকাই সিনেমার এই নায়িকা আরও বলেন, কেউ আমার কর্মী-সমর্থকদের কোনো প্রকার বিরক্ত করবেন না। এছাড়াও মাহি বিজয়ী প্রার্থীকে এই অঞ্চলের রাস্তাঘাট ও পানির সমস্যার প্রতি নজর দেয়ার পরামর্শ দেন।

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে রাজশাহী-১ আসনে ৯ হাজার ৯ ভোট পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহিয়া মাহি। আসনটিতে নৌকা প্রতীকের ওমর ফারুক চৌধুরী ১ লাখ ৩ হাজার ৫৯২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এই আসনে মোট বৈধ ভোটারের সংখ্যা ছিল ২ লাখ ১২ হাজার ২৯৬ জন। বাতিলকৃত ভোটের সংখ্যা ৭ হাজার ৪৯৭টি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *