ঢাকা, রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন
‘ঢাকায় যে নৌকা বিক্রি হয় তা আমি আগে জানতাম না’
ডেস্ক রিপোর্ট ::

দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার ১ নম্বর কালিরবাজার ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান এবং চেয়ারম্যান পদে এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মো. সেকান্দর আলী অভিযোগ করে বলেছেন, ‘ঢাকায় যে নৌকা বেচা-কিনি হয় তা আগে জানতাম না।’

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) আনারস প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর ‘বিজয় তর্জনী’ দেখিয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে তার অনুসারী নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে একথা বলেন তিনি। তার এমন বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়েছে এবং এ নিয়ে মঙ্গলবার দিনভর দলীয় অঙ্গনসহ জেলার বিভিন্ন মহলে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে।

মো. সেকান্দর আলী আদর্শ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং ওই ইউনিয়নের তিন বারের চেয়ারম্যান।

ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘আমরা জন্মগত নৌকা, আওয়ামী লীগ। আমার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ষড়যন্ত্র হইছে। ইউনিয়ন কমিটি, থানা কমিটি, জেলা কমিটি, আমাদের এমপি মহোদয় ডিও লেটার দিয়া (স্থানীয় সরকার নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ড) নৌকার জন্য পাঠাইছে। আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পাইছে ১৩ ভোট (তৃণমূলের প্রার্থী বাছাই ভোট), আমি পাইছি ৭৬ ভোট। আমি জানি না আমার নামে কেন নৌকা আসছে না। আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।’

তিনি আরও বলেন, ‘নৌকা পাওয়ার কথা আমি, কিন্তু নৌকা পাইছে ১৩ ভোটওলায়। আমি ৭৬ ভোটওলায় নৌকা পাইছি না। যে আজকে নৌকা নিয়া আসছে, সে এক বছর আগে আওয়ামী লীগে যোগ দিছে। হের টুটাল ফ্যামিলি জামাত-বিএনপি-শিবির এবং তারা কোনো দিন আওয়ামী লীগ করে নাই।’

তিনি বলেন, ‘নৌকা আমার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নৌকা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকা। নৌকা কীভাবে কিনলো, কীভাবে বেচলো জানি না। আমাদের কুমিল্লার যতো প্রতিনিধি আছে, যতো নেতৃবৃন্দ কেউ জানেন না। ঢাকার মধ্যে ঢাকা নৌকা বেচাকেনা হয় তা আমি আগে জানতাম না। আমার যে নৌকা বেচাকিনা হয়ে গেছে। আওয়ামী লীগ করি, আমি করবো। আজকে আমি আমার আনারস মার্কা পাইছি। কালির বাজারের প্রত্যেকটা জনগণ আমার পক্ষে আছে। আমি ২০ বছর রানিং চেয়ারম্যান। আগামীতে আনারস মার্কায় আমাকে সর্বোচ্চ ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে জনগণ আবার তাদের সেবা করার সুযোগ দিব।’

এই বিষয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায়  মো. সেকান্দর আলীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য জানা যায়নি।

তবে তার এমন বক্তব্যের বিষয়ে আওয়ামী লীগের স্থানীয় একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এমন বক্তব্য তৃণমূলে প্রার্থী বাছাইয়ে অধিক ভোট পেয়েও নৌকা প্রতীক না পাওয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সেকান্দর আলীর একান্তই ব্যক্তিগত বক্তব্য। এ বিষয়ে এর বেশি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তারা।

উল্লেখ্য, আগামী ২৬ ডিসেম্বর আদর্শ সদর উপজেলার ১ নম্বর কালির বাজার ইউনিয়নে নির্বাচন হবে। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) এ ইউনিয়নের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *