ঢাকা, রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪, ০২:৫৮ পূর্বাহ্ন
কক্সবাজারে ঘুষি দিয়ে চেয়ারম্যানের নাক ফাটালেন প্রকৌশলী
ডেস্ক রিপোর্ট ::

কক্সবাজারের পেকুয়ায় খারাপ ব্যবহার করার অভিযোগে ঘুষি দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের নাক ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপ-সহকারী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় স্থানীয়দের সহায়তায় আহত রাজাখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার (২৭ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের দশেরঘোনা বারবাকিয়া-রাজাখালী সংযোগ ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাজাখালীতে একাধিক সড়কের উন্নয়ন কাজ চলছিল। এসব প্রকল্পে দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সব সময় সোচ্চার ছিলেন চেয়ারম্যান বাবুল। ঘটনার দিন ব্রিজের ওপর ফাটা অংশে ঢালাইয়ের কাজ চলছিল। চেয়ারম্যান তার গাড়ি থেকে নেমে কাজের তদারকি করতে যায়। এ সময় প্রকৌশলী তার সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যানের গায়ে হাত তোলেন ওই প্রকৌশলী।

এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ জনতা মারধর করে উপ-সহকারী প্রকৌশলীকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এরপর পেকুয়া থানা পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

জানতে চাইলে উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আলিম বলেন, চেয়ারম্যান আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন। আমার শার্ট ধরে টানা হেঁচড়া করে আমাকে থাপ্পড় মেরেছে। এরপর তার সঙ্গে হাতাহাতি হয়। উনার লোকজন আমাকে মারধর করেছে।

চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল বলেন, পেকুয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণ করতে বাড়ি থেকে বের হই। এ সময় দশেরঘোনা সড়কের সংস্কার কাজ চলছিল। রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় বারবাকিয়া-রাজাখালী সংযোগ ব্রিজে নেমে কাজের তদারকি করি। এ সময় উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আলিমের সঙ্গে কথা হয়। ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের বিষয় নিয়ে আগামী সমন্বয় সভায় তাকে আলাপ করতে অনুরোধও করি। কিন্তু তিনি বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে আমাকে ঘুষি মারেন।

স্থানীয় প্রকৌশল অধিদপ্তরের পেকুয়া উপজেলার প্রকৌশলী লুৎফুর রহমান জানান, উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলিম প্রতিদিনের মতো ওই সাইটে কাজ তদারকি করতে যায়। এ সময় চেয়ারম্যান এসে জরুরি ভিত্তিতে ওই ব্রিজ সংস্কার করার জন্য উপজেলা সমন্বয় সভায় বলতে বলে। এ সময় চেয়ারম্যান আলীমের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন এবং তার ওপর চড়াও হন। এক পর্যায়ে আলীমকে থাপ্পড় দিলে সেও ঘুষি মারে। পরে চেয়ারম্যানের লোকজন এসে আলিমকে মারধর করে। এরপর পুলিশ গিয়ে আলিমকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্বিতা চাকমা বলেন, চট্টগ্রাম থেকে নির্বাহী প্রকৌশলী এসেছে। থানায় উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসেছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে সমস্যার সমাধান করে দেওয়ার চেষ্টা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *