ঢাকা, বুধবার ১৯ জুন ২০২৪, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
আবছার মেম্বারের উত্থান যেভাবে..
বাংলাদেশ প্রতিদিন ::

রোহিঙ্গাদের পুুঁজি করেই ওরা এখন ‘রাজা-বাদশা’। মাদক এবং চোরাচালানের অর্থে তারা গড়ে তুলেছেন বিশাল সাম্রাজ্য। থাকেন অট্টালিকায়। চড়েন আলিশান গাড়িতে।

স্থানীয়রা বলছেন, রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করেই ওরা হয়ে গেছেন ‘আঙুল ফুলে কলাগাছ’। কিছুদিন আগেও যারা ছিলেন গাড়ির হেলপার, পানের দোকানদার কিংবা ব্যাটারির পানির ব্যবসায়ী তারা আজ অঢেল সম্পদের মালিক। অনেকটা তাদের ইশারাতেই চলে প্রশাসন। তাদের চোখ রাঙানিতে তটস্থ এলাকার মানুষ।

অভিযোগ রয়েছে, ক্ষমতাসীনদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে থেকে এরই মধ্যে তাদের অনেকেই বনে গেছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি চেয়ারম্যান এবং মেম্বার।

গত বছরের ১৪ জুলাই ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ র‌্যাবের কাছে গ্রেফতার হয়েছিলেন পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী   এলাকার পালংখালী ইউপির ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য নুরুল আবছার চৌধুরী (৩৫) ও নুরুল আলম চৌধুরী। ২০১৬ সালের ১৮ জুন পালংখালী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পদে নির্বাচন করার জন্য নুরুল আবছার বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের কাছে যে হলফনামা জমা দেন, ওখানে তার নগদ মাত্র ১৫ হাজার টাকা ও ব্যাংকে ৯ লাখ ৩৫ হাজার টাকা জমা থাকার তথ্য দেওয়া হয়।

হলফনামায় যে অর্থ উল্লেখ করেছিলেন তিনি, সেটি মাত্র চার বছরে বহু গুণ বেড়ে গেছে। ২০১৬ সালের জুন থেকে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত মাত্র ৪ বছরে আকাশ-পাতাল পরিবর্তন এসেছে আবছারের অর্থ-সম্পদে। বিশেষ করে রোহিঙ্গা আসার পর থেকে। বেশিরভাগ অপরাধ কর্মে তিনি রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করেন। হলফনামায় বাড়ির কথা উল্লেখ না থাকলেও বর্তমানে আবছার দুটি তিনতলা বিশিষ্ট ভবন এবং ১টি বিশাল টিনশেড কলোনির মালিক। এ ছাড়া বালুখালী পানবাজারে আবছারের বিশাল মুদির দোকান আছে। আছে একটি নোয়া মাইক্রোবাস, একটি ডাম্পার ও একটি ট্রাক।

অভিযোগ রয়েছে, ইয়াবা বহনের জন্য কক্সবাজার-চট্টগ্রাম-ঢাকা মহাসড়কে এসব যানবাহনকে ব্যবহার করেন তিনি। তার সহোদর নুরুল আমিন চৌধুরী ইতিপূর্বে ইয়াবার চালান নিয়ে ধরা পড়েন। পৃষ্ঠপোষকতা করেন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের। এবারও তিনি প্রার্থী হয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার সঙ্গে রোহিঙ্গা কিংবা কোনো অপরাধীর সঙ্গে সম্পৃক্ততা নেই। যদি এই রকম কোনো কিছু থেকে থাকে, তাহলে দুদক আছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আছে তারা ব্যবস্থা নেবে। আমি মাথা পেতে নেব। এখানে জামায়াত-বিএনপির চক্র অনেক শক্তিশালী। তারা আমার বিরুদ্ধে সব সময় ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তাদের কারণেই আমি একবার জেল খেটেছি।

 

(সূত্র – ৫ নবেম্বর বাংলাদেশ প্রতিদিনে “রোহিঙ্গাদের ঘিরে ওরা রাজা বাদশা” শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে নেওয়া) 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *